হোম মোটরসাইকেল রিভিউ ফিচার রিভিউ রানার টার্বো ১৫০ (Runner Turbo 150) মোটরসাইকেল ফিচার রিভিউ

রানার টার্বো ১৫০ (Runner Turbo 150) মোটরসাইকেল ফিচার রিভিউ

0
0
রানার টার্বো ১৫০

রানার টার্বো ১৫০ (Runner Turbo 150) মোটরসাইকেল ফিচার রিভিউ

রানার মোটরসাইকেল মূলত বাংলাদেশি মোটরসাইকেল কোম্পানি যারা বেশ কয়েক বছর ধরে মোটরসাইকেল উৎপাদন করে যাচ্ছে। রানার মোটরসাইকেল মূলত বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের কথা মাথাই রেখে এদের মোটরসাইকেলগুলো তৈরি করে আসছে। কারণ রানার মোটরসাইকেল খুবি স্বল্প মূল্যের মধ্যে সাধারণ মোটরসাইকেল উৎপাদন করে থাকে যাতে করে নিম্ন আয়ের মানুষ তাদের স্বল্প সাধ্যের মধ্যে মোটরসাইকেল ব্যবহার করতে পারে। আর এদের উৎপাদনকৃত মোটরসাইকেলের সবগুলোই স্ট্যান্ডার্ড ক্যাটাগরির মোটরসাইকেল। আর আজকে আপনাদের মাঝে রানার গ্রুপের একটি সাধারণ মোটরসাইকেল উপস্থাপন করতে যাচ্ছি যারা সাধ্যের মধ্যে সাধারণ মোটরসাইকেল ক্রয় করার জন্য খুঁজছেন আশা করি এই মোটরসাইকেলটি তাদের ভাল লাগবে। আর এই মোটরসাইকেলটি হচ্ছে রানার টার্বো ১৫০ (Runner Turbo 150)। তো চলুন জেনে নেয়া যাক মোটরসাইকেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

ডিজাইনঃ

ডিজাইনের দিক থেকে বলতে গেলে খুবই সাধারণ ডিজাইনের মোটরসাইকেল রানার টার্বো ১৫০। তবুও সাধারণ ডিজাইন হলেও মোটরসাইকেলটি দেখতে বেশ আকর্ষনিয়। মোটরসাইকেলটির বডি মাঝাড়ি ধরণের এবং মোটরসাইকেলটির সিট বেশ লম্বা আকারের যার পেছনের দিকটা হালকা উঁচু ভাবে তৈরি করা হয়েছে। মোটরসাইকেলের সামনের অংশে এর হেডলাইটটি বেশ আকর্ষনিয় দেখতে যা সহজেই আপনার নজর কাড়বে। এছাড়াও মোটরসাইকেলের বডিতে বেশ কয়েকটি রঙের সংমিশ্রন লক্ষ করা যায় যেমন কালো, সবুজ এবং সাদা। আর এ সকল রঙের সংমিশ্রণের কারণে মোটরসাইকেলটি দেখতে বেশ আকর্ষনিয় লাগে। যারা সাধারণ ডিজাইনের মোটরসাইকেল পছন্দ করেন তাদের মোটরসাইকেলটি বেশ পছন্দ হবে।

ইঞ্জিনঃ

একটি সিঙ্গেল সিলিন্ডার, ৪টি স্ট্রোক, এয়ার কোল্ড কুলিং সিস্টেম এবং পেট্রোল ইঞ্জিন ধরণের ইঞ্জিন সংযুক্ত করা হয়েছে এই মোটরসাইকেলে। ইয়ামাহা রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলের ১৪৮.২ সিসি ইঞ্জিন সত্যিই অসাধারণ যে কোন স্ট্যান্ডার্ড ক্যাটাগরির বাইকের জন্য আর এই ১৪৮.২ সিসি ধরণের ইঞ্জিন এই মোটরসাইকেলকে আরো শক্তিশালী করে তুলেছে। এছাড়াও এই ইঞ্জিনের সর্বচ্চ পাওয়ার হচ্ছে ৮.৫ কিলোওয়াট @ ৭৩০০ আরপিএম এবং এর সর্বচ্চ তোরকিউ হচ্ছে ১১.৫ এনএম @ ৫৫০০ আরপিএম। এছাড়াও মোটরসাইকেলটিতে আপনার সুবিধার জন্য দুটি চালু করার মাধ্যম রয়েছে একটি ইলেক্ট্রিক এবং একটি কিক।

গিয়ারঃ

রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলটিতে ৪টি গিয়ার রয়েছে।

স্পিড এবং মাইলিয়েজঃ

রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলের স্পিড এবং মাইলিয়েজ বেশ ভাল মানের। এই স্ট্যান্ডার্ড ধরণের মোটরসাইকেল প্রতি ঘন্টায় সর্বচ্চ ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতিতে ছুটতে সক্ষম। এছাড়াও এই মোটরসাইকেলটি প্রতি লিটারে ৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারবে।

ফুয়েল ট্যাংকঃ

রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলের ফুয়েল ট্যাংকটি খুব একটা বড় সাইজের না হলেও এই ফুয়েল ট্যাংকটি বেশ ভাল মানের ফুয়েল ধারণ করতে সক্ষম। এই ফুয়েল ট্যাংকটি সর্বচ্চ ১৫ লিটার পর্যন্ত ফুয়েল গ্রহন করতে পারে যার দ্বারা আপনি সহজেই প্রায় ৬৭৫ কিলোমিটার পর্যন্ত ভ্রমন করতে পারবেন এই মোটরসাইকেলের ফুয়েল ট্যাংকটি সম্পূর্ণ ভর্তি করে।

সাস্পেনশনঃ

দুটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর সাস্পেনশন সিস্টেম তৈরি করা হয়েছে এই রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলের জন্য যা এই মোটরসাইকেলটিকে মজবুত রাখতে সাহায্য করবে সবসময়। এই মোটরসাইকেলের সামনের দিকে একটি টেলিস্কপিক এবং পেছনের দিকে টুইন শক্স ধরণের সাস্পেনশন সিস্টেম রয়েছে।

ব্রেকঃ

রানার টার্বো ১৫০ ব্রেকগুলোও বেশ মজবুত এবং শক্তিশালী। এই মোটরসাইকেলের সামনের অংশে একটি ডিস্ক এবং এর পেছনের অংশে একটি ড্রাম ধরণের ব্রেকিং সিস্টেম রয়েছে যা এই মোটরসাইকেলটি দ্রুত নিয়ন্ত্রন করতে আপনাকে সাহায্য করবে।

দামঃ

রানার টার্বো ১৫০ মোটরসাইকেলটি বাংলাদেশের বাজার অনুসারে এর বর্তমান বাজার মূল্য মাত্র ১,৪০,০০০ টাকা।

শেষ কথাঃ

রানার টার্বো ১৫০ এই মোটরসাইকেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার পর এটুকু বলা যাই যে এতি একটি মোটানুটি ভাল মানের স্ট্যান্ডার্ড মোটরসাইকেল। এই মোটরসাইকেলের সাধারণ এবং আকর্ষনিয় ডিজাইন, স্পিড ও মাইলিয়েজ উন্নত মানের ইঞ্জিন কুয়ালিটি সবকিছুই বেশ ভাল যার কারণে এই মোটরসাইকেলটি সম্পর্কে জানার পর যে কোন মোটরসাইকেল প্রেমিই এই মোটরসাইকেলটি নিঃসন্দেহে পছন্দ করবে এবং এই মোটরসিকেলটি কিনতে আগ্রহী হবে। আর যারা সাধারণ ধরণের এবং স্বল্প দামের মধ্যে ভাল মানের মোটরসাইকেল খুঁজছেন তাদের জন্য আশা করা যায় এই মোটরসাইকেলটি নিঃসন্দেহে উপযোগি একটি মোটরসাইকেল।

Full Specification of Runner Turbo 150

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।