হোম খবর বাংলাদেশেই তৈরি হচ্ছে হিরো মোটরসাইকেল

বাংলাদেশেই তৈরি হচ্ছে হিরো মোটরসাইকেল

0
0
হিরো মোটরসাইকেল

হোন্ডার পর এবার হিরো বাংলাদেশে মোটরসাইকেল উৎপাদন শুরু করেছে। হিরোর দেশীয় পরিবেশক নিলয় মোটরস লিমিটেডের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে মোটরসাইকেল উৎপাদন চলছে। শুরুতে যশোরে একটি কারখানার মাধ্যমে হিরো মটোরসাইকেল তৈরি হচ্ছে। সরকারি সহযোগিতা পেলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশে হিরো মোটরসাইকেল উৎপাদন কারখানার সংখ্যা আরো বাড়বে বলে নিলয় মোটরস আভাস দিয়েছে।

হিরো মোটর সাইকেলের যশোরের কারখানায় হিরোর বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় মোটরসাইকেল তৈরি হচ্ছে। এর মধ্যে আছে হিরো হাঙ্ক, স্প্লেন্ডার প্লাস, আইস্মার্ট, হিরো অ্যাচিভার, গ্লামার ইত্যাদি

নিলয় মোটরস জানিয়েছে, দেশে পুরোদমে হিরোর মোটরসাইকেল উৎপাদন শুরু হলে বাইকের দাম অনেকটাই কমে আসবে।

নিলয় মোটরস লিমিটেডের বিক্রয় ও বিপণন বিভাগের নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ কামরুল হাসান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘হিরোর জনপ্রিয় বাইক হাঙ্ক ভারতের উৎপাদন বন্ধ হলেও এখন এটি দেশেই উৎপাদিত হচ্ছে। ফলে এই বাইকটির দাম অনেকাংশে কমেছে। ভবিষ্যৎতে হাঙ্গ সহ আরো বেশ কয়েকটি মডেলের বাইকের দাম কমবে।

বর্তমানে হিরো ছাড়াও হোন্ডা দেশে মোটরসাইকেল সংযোজন করছে। সরকারের সঙ্গে একজোট হয়ে প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জে একটি কারখানা চালু করেছে। এই কারখানায় হোন্ডার জনপ্রিয় সব মডেলে উৎপাদিত হবে। শুরুতে হোন্ডা দেশে ১১০ সিসির ড্রিম নিও উৎপাদন করবে। এই বাইকটির দাম এখন ১ লাখ ১৪ হাজার ৫০০ টাকা। বাংলাদেশে এর উৎপাদন শুরু হলে বাইকটির দাম হবে ১ লাখ টাকার মধ্যে।

বাংলাদেশে বর্তমানে রানার, পেগাসাস ও রোডমাস্টার দেশীয় প্রযুক্তি ও অর্থায়নের মোটর সাইকেল উৎপাদন করছে। এসব মোটরসাইকেল দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করছে। তবে এসব মোটরসাইকেলের মান ভারতে উৎপাদিত মোটরসাইকেলের চেয়ে পিছিয়ে আছে। ফলে মোটরসাইকেলের দেশীয় বাজার অনেকটাই দখল করে আসছে বিদেশি বাইক। কিন্তু বিদেশি বাইকের দাম দেশীয় বাইকের তুলনায় অনেকটাই বেশি। দামের এই ফাঁরাক দূর করতে দেশীয় বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে একজোট হয়ে অনেকগুলো প্রতিষ্ঠান দেশে মোটরসাইকেল উৎপাদন কারখানা শুরু করেছে। কয়েকটি বিদেশি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে স্থানীয় বিনিয়োগকারী খুঁজছে।

এ নিয়ে নিলয় মোটরস লিমিটেডের বিপণন বিভাগ সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. মাহাবুব ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘নিলয় মোটরস লিমিটেড হিরো মোটর করপোরেশনের উৎপাদিত বাইক দীর্ধদিন ধরে বাজারজাত করে আসছে। কিন্তু হিরোর এই বাইক দেশে আমদানী করতে গেলে মোটা অংকের শুল্ক দিতে হয়। ফলে বাইকের দাম বেড়ে যায়। এই সমস্যাটা দূর করতে হিরোর সঙ্গে নিলয় মোটরস করপোরেশনের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে যশোরে মোটরসাইকেল উৎপাদন কারখানা চালু করেছে। আনুষ্ঠানিকভাবে এই কারখানা উদ্বোধন করা না হলেও এখানে মোটরসাইকেল উৎপাদন চলছে।

মো. মাহাবুব আরো বলেন, ‘বর্তমানে যশোরের এই কারখানায় তৈরি হচ্ছে টায়ার, টিউব, চেসিস, প্লাস্টিক কিট ইত্যাদি। ভারত থেকে ইঞ্জিন ও এর আনুসঙ্গিক আরও কিছু যন্ত্রাংশ আমদানী করে কারখানায় সংযোজন করা হচ্ছে। বাইকের রঙও এখানে হচ্ছে। ফলে আমাদের এই কারখানা থেকে একটি মোটরসাইকেল সম্পূর্ণ রূপে ফিনিশিং প্রডাক্ট হিসেবে বাজারে আসছে।’

মো. মাহাবুব জানান, দেশে হিরো মোটর করপোরেশনের উৎপাদিত বাইকের দাম ভারতে উৎপাদিত হিরো মোটরসাইকেলের দাম অনেকটাই কম। ভবিষ্যতে হিরো মোটরসাইকেলের দাম আরও কমবে। এজন্য তিনি সরকারি সহযোগিতা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।