হোম মোটরসাইকেল রিভিউ টেকনিক্যাল রিভিউ এইচ পাওয়ার ডার্ক (H Power Dark) টেকনিকাল রিভিউ

এইচ পাওয়ার ডার্ক (H Power Dark) টেকনিকাল রিভিউ

0
0
H Power Dark

এইচ পাওয়ার ডার্ক (H Power Dark) টেকনিকাল রিভিউ

বর্তমান সময়ে স্পোর্টস বাইকের পাশাপাশি ক্রুজার বাইকের প্রতি মোটরসাইকেল প্রেমিদের ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ করা যায় আর তাই মোটরসাইকেল কোম্পানিগুলো স্পোর্টস এবং স্ট্যান্ডার্ড বাইকের পাশাপাশি ক্রুজার ধরণের বাইকও তৈরি করছে এবং ক্রুজার বাইকের নির্মান শৈলি অন্য সকল ক্যাটাগরির বাইকের চাইতে ভিন্ন হওয়াই অনেকেই এই বাইক কিনতে আগ্রহী হন। আর বর্তমান সময়ে আমরা বাংলাদেশি কিছু মোটরসাইকেল ব্র্যান্ড দেখতে পাই যারা ক্রুজার ধরণের বাইক তৈরি করছে তার মধ্যে এইচ পাওয়ার অন্যতম আর বাংলাদেশি মোটরসাইকেল কোম্পানি হলেও এইচ পাওয়ার এখনো তেমন পরিচিতি লাভ করে উঠতে পারেনি তবুও তারা দিন দিন তাদের ভিন্ন ধরণের মোটরসাইকেল বাজারে নিয়ে এসে মোটরসাইকেল প্রেমিদের দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আর এইচ পাওয়ার ডার্ক (H Power Dark) হচ্ছে এইচ পাওয়ার মোটরসাইকেল কোম্পানির একটি চমৎকার ক্রুজার বাইক এবং এই ক্রুজার বাইকটিতে ব্যবহার করা হয়েছে চমৎকার কিছু টেকনিকাল উপাদান আর এখন জেনে নেবো কি ধরণের টেকনিকাল উপাদান থাকছে এই ক্রুজার মোটরসাইকেলটিতে।

ডিজাইনঃ

সম্পূর্ণ কালো রঙের এই ক্রুজার বাইকটির ডিজাইন দেখলে মোটরসাইকেল প্রেমিরা বেশ আকৃষ্ট হবে এই মোটরসাইকেলটির প্রতি। বেশ লম্বা দেহের এই ক্রুজার বাইকের হ্যান্ডেলটি অনেকখানি উঁচু ভাবে তৈরি করা হয়েছে যা অন্যান্য ক্রুজার বাইকেও দেখতে পাওয়া যায়। আর এর মাঝাড়ি সাইজের ফুয়েল ট্যাংকটির উপরের অংশ সামান্য উঁচু এবং মোটা হয়ে নিচের দিকে চিকন হয়ে নেমে এসেছে আর এই ফুয়েল ট্যাংকটি বেশ চমৎকার দেখতে। আর বাইকের উঁচু নিচু ডিজাইনের বসার সিটটিও সহজেই সবার নজর কাড়তে সক্ষম। আর এই ক্রুজারের অন্যতম আকর্ষনিয় অংশ হচ্ছে বাইক চালকের জন্য এই বাইকের নিচের অংশে চমৎকার একটি ফুট স্ট্যান্ড তৈরি করা হয়েছে যা বাইক চালকের পা ভালভাবে রাখতে বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখবে। আর এই ক্রুজারের টুইন সাইলেন্সার এর ডিজাইনে অন্য মাত্রা যোগ করেছে।

কন্ট্রোলঃ

মোটামুটি ভাল মানের কন্ট্রোলিং ও হ্যান্ডেলিং সিস্টেম দেবে এই ক্রুজার বাইক। আর বাইকটি চালানোর সময় বাইকটির কন্ট্রোলিং বা হ্যান্ডেলিং সিস্টেম নিয়ে বাইকারকে কোন রকম অসুবিধায় পড়তে হবেনা আশা করি। আর এই বাইকটি নিয়ন্ত্রণ করতে বাইকের ডিস্ক এবং ড্রাম ধরণের দুটি ব্রেক বাইকারকে বেশ সাহায্য করবে।

ইঞ্জিনঃ

১৪৯.৭ সিসি শক্তিশালী ইঞ্জিনের সাথে এই ইঞ্জিনে আরো আছে একটি এয়ার কোল্ড কুলিং সিস্টেম যা এই ইঞ্জিনটিকে ঠান্ডা রাখতে অনেক সাহায্য করবে। তবে এই ইঞ্জিনের ম্যাক্সিমাম পাওয়ার এবং তোরকিউ না থাকাই এটাকে উন্নত মানের ইঞ্জিন বলা যাবেনা কারণ একটি উন্নত মানের দেড়শো সিসির ক্রুজার বাইকের জন্য ম্যাক্সিমাম পাওয়ার এবং তোরকিউ খুবি গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। এছাড়া বাইকের ইলেক্ট্রিক এবং কিক ধরণের দুটি স্টার্টাপ সিস্টেম বাইক চালককে বাইকটি দ্রুত চালু করতে বেশ সাহায্য করবে।

<<=অন্যান্য ফিচার=>>

সাস্পেনশন এবং ব্রেকঃ

এইচ পাওয়ার ডার্ক এই ক্রুজার মোটরসাইকেলটিতে পেছনের অংশে একটি টুইন শক্স ধরণের সাস্পেনশন সিস্টেম রাখা হয়েছে যেটি এই বাইকের জন্য বেশ কার্যকর হবে। এছাড়াও বাইকটি নিয়ন্ত্রণ করতে বাইকটিতে দুটি মোটামুটি মজবুত ধরণের ব্রেকিং সিস্টেম রাখা হয়েছে যার সামনে একটি ডিস্ক এবং পেছনে একটি ড্রাম ধরণের ব্রেকিং সিস্টেম রয়েছে।

হেডল্যাম্পঃ

এই ক্রুজার বাইকের হেডল্যাম্প খুব একটা উন্নত মানের নয়। গোল ধরণের এই হেডলাইটে রয়েছে একটি সাধারণ টেইল ল্যাম্প এবং একটি টার্ন ল্যাম্প।

স্পিড এবং মাইলিয়েজঃ

স্পিডের দিক থেকে বেশ ভালই বলা যায় এই এইচ পাওয়ার ডার্ক মোটরসাইকেলটি কেননা এই বাইকটি দাবি করে তার সর্বচ্চ স্পিড হচ্ছে ১২০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় যা বেশ ভাল মানের স্পিড বলা যায় এ ধরণের ক্রুজার বাইকের জন্য। যেখানে বাইকাররা সহজেই ১১০/১১৫ গতি তুলতে পারবেন। তবে মাইলিয়েজের দিকে থেকে খুব একটা ভাল নয় এই মোটরসাইকেলটি আর এই বাইকটি প্রতি লিটারে ৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারবে বলা হয় যেখানে গড়ে বাইকাররা খুব একটা বেশি মাইলিয়েজ পাবেনা।

ভাল দিকঃ

  • চমৎকার ইউনিক ডিজাইন।
  • টুইন শক্স সাস্পেনশন।
  • ভাল মানের স্পিড।
খারাপ দিকঃ
  • ইঞ্জিন কুয়ালিটি আরো ভাল হওয়া উচিত ছিল।
  • একদম সাধারণ অনুন্নত হেডল্যাম্প।
  • কম মাইলিয়েজ।

শেষ কথাঃ

পরিশেষে বলা যায় যে এটি বাংলাদেশি মোটরসাইকেল ব্র্যান্ডের একটি চমৎকার ডিজাইনের ক্রুজার বাইক এবং এটি একটি মোটামুটি মানের ক্রুজার বাইক বলা যেতে পারে। আর যারা এই স্পোর্টস বাইকের বাজারে ক্রুজার বাইক নিতে আগ্রহী তারা এই বাইকটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

Full Specification of H Power Dark

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।