বাজাজ পালসার এএস ১৫০ (Bajaj Pulsar AS150) ফিচার রিভিউ

বাজাজ পালসার এএস ১৫০


বাজাজ পালসার এএস ১৫০ (Bajaj Pulsar AS150) ফিচার রিভিউ

বর্তমান সময়ে বাজাজের মোটরসাইকেলগুলোর মধ্যে পালসার বাজাজ পালসার সিরিজের মোটরসাইকেল সব থেকে সফল ও জনপ্রিয় আর এই সময় তরুণ বাইকারদের কাছে বাজাজ পালসার মোটরসাইকেলের বেশ চাহিদা। কারণ এই পালসার সিরিজের মোটরসাইকেলগুলো বেশ স্মার্ট দেখতে এবং স্পোর্টস ক্যাটাগরির মোটরসাইকেল হওয়াই এর ইঞ্জিন কুয়ালিটিও বেশ উন্নত ও শক্তিশালী। এই বাজাজ পালসার সিরিজের মোটরসাইকেলের বেশ চাহিদা থাকাই এইবার এই সিরিজটি তাদের নতুন এবং একদম ভিন্ন ডিজাইনের মোটরসাইকেল বাজারে নিয়ে এসেছে যা অন্য সকল পালসারের থেকে আলাদা এবং উন্নত। আর এই মোটরসাইকেলটি হচ্ছে বাজাজ পালসার এএস ১৫০ (Bajaj Pulsar AS150) । আশা করা যায় এই নতুন বাজাজ পালসার এএস ১৫০ মোটরসাইকেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার পর এবং এর অসাধারণ এবং ভিন্ন ধরণের ডিজাইন দেখার পর যে কোন মোটরসাইকেল প্রেমি এই বাইকটি কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করবে। তো চলুন জেনে নেয়া যাক বাজাজ পালসার এ এস ১৫০ মোটরসাইকেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

ডিজাইনঃ

ডিজাইনের দিক থেকে বলতে গেলে অসাধারণ ভিন্ন ধরণের ডিজাইনে বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে এই বাজাজ পালসার এএস ১৫০ মোটরসাইকেলটি। প্রথমেই বলতে হয় এই মোটরসাইকেলটি তিনটি ভিন্ন রঙ্গে বাজারে এসেছে একটি সম্পূর্ণ কালো, একটি নীল এবং কালো সংমিশ্রন, এবং লাল কালো সংমিশ্রণ আর এই তিন ধরণের রঙের মোটরসাইকেলই বেশ চমৎকার দেখতে যা সহজেই মোটরসাইকেল প্রেমিদের নজর কাড়বে। এবার আসা যাক বাইকের বডি ডিজাইনের দিকে এখানে প্রথমেই বাইকের সামনের অংশ আপনার চোখে পড়বে কারণ এই বাইকের মাথাটি একদম আলাদা ভাবে তৈরি করা হয়েছে যা অন্য পালসারগুলোতে নেই। অন্য সকল পালসার বাইকে আমরা দেখেছি যে বাইকের মাথার অংশ অর্থাৎ হেডলাইটটি ফুয়েল ট্যাংকের সাথে সংযুক্ত থাকে কিন্তু এই বাইকের হেডলাইটটি একদম আলাদা ভাবে লাগানো হয়েছে যা অনেকটা সামনের দিকে বাড়ানো রয়েছে। এবং ফুয়েল ট্যাংক থেকে শুরু করে হেডলাইট পর্যন্ত দুইপাশে দুটি প্লাস্টিক সেপ লাগানো হয়েছে যা বাইকের সৌন্দর্য আরো দিগুন করেছে। এছাড়াও এর ফুয়েল ট্যাংকটি ভিন্ন ধরণের ডিজাইন করা হয়েছে যা অন্য সকল পালসারের থেকে আলাদা। আর এর দুইটি আলাদা ডিজাইনের সিট আপনাকে বেশ আকর্ষিত করবে।

ইঞ্জিনঃ

বাজাজ পালসার এএস মোটরসাইকেলটি টুইন স্পার্ক, ৪টি ভাল্ভ, এবং একটি ডিটিএস-আই ধরণের ইঞ্জিন দিয়ে সাজানো হয়েছে যা বেশ উন্নত মানের ইঞ্জিন কুয়ালিটি। এছাড়াও এর ডিস্প্লেসিমেট ইঞ্জিন হচ্ছে ১৪৯.৫সিসি যা বাইকের ইঞ্জিনকে আরো শক্তিশালী করে তুলেছে। আর এই ইঞ্জিনের সর্বচ্চ পাওয়ার হচ্ছে ১৬.৮ বিএইচপি এবং ৯৫০০ আরপিএম ও এর সর্বচ্চ তোরকিউ হচ্ছে ১৩ এনএম এবং ৭০০০ আরপিএম।

স্পিড এবং মাইলিয়েজঃ

বেশ ভাল মানের স্পিড এবং মাইলিয়েজ নিয়ে বাজারে এসেছে এই বাজাজ পালসার এএস ১৫০ মোটরসাইকেলটি। এই মোটরসাইকেলটি প্রতি ঘন্টায় ১১০ কিলোমিটার গতি বেগে ছুটতে পারবে যা সত্যিই বেশ ভাল মানের স্পিড। এছাড়াও অসাধারণ মাইলিয়েজ থাকছে এই মোটরসাইকেলটিতে, এই মোটরসাইকেলটি প্রতি লিটারে ৫৫ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে সক্ষম যা সত্যিই যে কোন বাইকের জন্যই অসাধারণ।

ফুয়েল ট্যাংকঃ 

এই মোটরসাইকেলের ফুয়েল ট্যাংকটি দেখতে একটু বড় মনে হলেও এটি খুব বেশি ফুয়েল ধারণ করতে সক্ষম নয় এই ফুয়েল ট্যাংকটি সর্বচ্চ ১২ লিটার ফুয়েল ধারণ করতে সক্ষম এবং এর সাথে রিজার্ভ রয়েছে ২.৪ লিটার যার দ্বারা আপনি সহজেই ৬৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত ভ্রমন করতে পারবেন সম্পূর্ণ ট্যাংকটি ভর্তি করে।

সাস্পেনশনঃ

দুটি অসাধারণ এবং উন্নত মানের সাস্পেনশন সিস্টেম সংযুক্ত করা হয়েছে বাজাজ পালসার এএস ১৫০ এই মোটরসাইকেলটিতে। এর সামনের দিকে রয়েছে একটি টেলিস্কপিক এর সাথে এন্টি ফ্রিকশন বুশ ধরণের সাস্পেনশন এবং এর পেছনের দিকে রয়েছে ৫ ওয়ে এডজাস্টেবল নিট্রোক্স শক এবজরবার ধরণের সাস্পেনশন যা সত্যিই বেশ উন্নত মানের ও কার্যকরি সাস্পেনশন।

ব্রেকঃ

বাজাজ পালসার এএস ১৫০ মোটরসাইকেলে বেশ উন্নত এবং শক্তিশালী ব্রেকিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। এই বাইকের সামনের দিকে রয়েছে ২৪০এমএম ডিস্ক ব্রেক এবং এর পেছনের দিকে আছে একটি ১৩০এমএম ড্রাম ব্রেক।

দামঃ

বাজাজ পালসার এএস ১৫০ মোটরসাইকেলটি বাংলাদেশের বাজার অনুসারে এর বর্তমান বাজার মূল্য মাত্র ২,২৩,৫০০ টাকা।

শেষ কথাঃ

বাজাজ পালসার এএস ১৫০ বাজাজের পালসার সিরিজের একটি নতুন এবং উন্নত মানের এবং স্মার্ট ডিজাইনের মোটরসাইকেল যার ভিন্ন ধরণের ডিজাইন উন্নত মানের ইঞ্জিন কুয়ালিটি অসাধারণ স্পিড বেশি মাইলিয়েজ সকল কিছুই যে কোন মোটরসাইকেল প্রেমিকে সহজেই মুগ্ধ করবে এবং এই মোটরসাইকেলটি কিনতে আগ্রহী করে তুলবে।

Full Specification of Bajaj Pulsar AS150